কুষ্টিয়ায় ঈদের দিনে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতির উপর হামলা

43

কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিক এর উপরে হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। ঈদের দিন (২১-৭-২১) বুধবার রাত ১০.৩০  ঘটিকার সময় কুষ্টিয়া কলেজ মোড়ে এই হামলার ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিক ঈদের দিন রাত্রে ছাত্রলীগের কর্মীদের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে বাড়িতে ফেরার পথে তাকে লক্ষ্য করে দুই রাউন্ড গুলি করে দুর্বৃত্তরা। দুই রাউন্ড গুলি করার পরও যখন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিক কে হত্যা করতে ব্যর্থ হয় তখন পিস্তল দিয়ে মাথার উপরে  বাড়ি দেয় এবং বেস-ব্যাট দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে পেটাতে থাকে এ সময় অনেকের সাথে থাকা ছাত্রলীগ কর্মী রক্তিম ঘোষের উপরও অমানবিকভাবে হামলা করে দুর্বৃত্তরা এ সময় আতিকুর রহমান অনিক মাটিতে পড়ে গেলে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে দ্রুত পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় স্থানীয় ব্যক্তি এবং ছাত্রলীগ কর্মীরা তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসে এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ও তার মাথায় চারটে সেলাই দিয়ে পড়ে থাকে কেবিনে দেওয়া হয়। এ বিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব এর সাথে কথা বললে তিনি জানান ১৯৭৪ সালে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ঈদের নামাজে সিজদারত অবস্থায় গুলি করে হত্যা করে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর গোলাম কিবরিয়া এমপিকে। ঐ বছরেই কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খাঁনকে মথুরাপুর হাটের মধ্যে হাজার হাজার মানুষের সামনে বিকেল বেলায় গুলি করে হত্যা করে। রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকাবস্থায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে সপরিবারে গুলি করে হত্যা করে। আওয়ামীলীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় এলেই কি এই সংগঠনের নেতা কর্মীরা নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়ে? কুষ্টিয়ায় গতকাল ঈদের দিনে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিককে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি চালায়। গুলি লক্ষ্যভেদ না হলে তার মাথায় এলোপাথাড়ি হামলা করে। সিসিফুটেজে দেখা যায়, এক সময় বিএনপির চিহ্নিত ক্যাডার বাহিনী এখন ছাত্রলীগে প্রবেশ করে এই হামলা চালায়। ক’দিন আগে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবকদের উপর সন্ত্রাসী হামলা চালায়। তাদেরও মাথায় আঘাত করে রক্তাক্ত করে। সেলাই লেগেছে অনেকগুলো। জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি অনিকেরও মাথায় আক্রমন। সেলাই পড়েছে ৪টি। হামলার লক্ষ্যবস্তু এক ও অভিন্ন। তাহলে ঐ হামলাকারীদের সাথে এই হাসলাকারীদের যোগসূত্র রয়েছে? বিএনপি জামায়াত পরিবারের সন্তানদের ছাত্রলীগ থেকে বের করে না দিলে এমন গুপ্ত ও প্রকাশ্য হামলা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি ধারণা করেন। তাই সিসিটিভি ফুটেজ দেখে হামলার সাথে থাকা জড়িতদের কে দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। এ বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ হাফেজ চ্যালেঞ্জ এর সাথে কথা বলে তিনি জানান এ হামলা কোন সাধারন হামলা নয় দুর্বৃত্তরা ছাত্রলীগকে নির্মূল করতেই জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিক রহমান অনিককে মেরে ফেলে দেয়ার জন্য এ হামলা করেছিল তাই সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করে তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় আনা না হলে কঠোর থেকে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন।এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাবিরুল ইসলাম এর সাথে কথা বল্লে তিনি জানান এ বিষয়ে আমরা লিখিত অভিযোগ পেয়েছি এবং সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দোষীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।