ক্যানসার থেকে বাঁচতে মেনে চলুন কিছু নিয়ম

20

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ক্যানসার কেন হয়, তার সঠিক কারণ বলা মুশকিল। কিছু ক্যানসার সরাসরি পারিবারিক ইতিহাস ও জিনগত ত্রুটির সঙ্গে সম্পর্কিত। আবার দৈনন্দিন জীবনাচরণ ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়। ক্যানসার প্রতিরোধে সার্বিকভাবে কিছু পন্থা মেনে চলুন। স্বাস্থ্যকর অভ্যাস ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়।

জেনে নিন ক্যানসার প্রতিরোধের কিছু নিয়মঃ-

>> ক্যানসার রুখতে সবুজ ও রঙিন শাকসবজি এবং তাজা ফলমূল পর্যাপ্ত পরিমাণে খেতে হবে। এসব খাবারে যথেষ্ট আঁশ আছে, যা বৃহদান্ত্রের ক্যানসার রুখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া এসব খাদ্যে প্রচুর অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট আছে, যা কোষ ভালো রাখে। প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের দানাশস্য ও শিমজাতীয় খাবার পর্যাপ্ত পরিমাণে খেতে হবে।

>> কোনো ধরনের প্রক্রিয়াজাত খাবার খাবেন না। এসব খাবারে ব্যবহৃত প্রিজারভেটিভ ও ট্রান্সফ্যাটে ক্যানসার উৎপাদনকারী উপাদান থাকে। লাল মাংস বা রেড মিট (গরু, খাসির মাংস) দৈনিক তিন আউন্সের কম খাবেন। লাল মাংসের চেয়ে আমিষের উৎস হিসেবে মুরগির মাংস বা মাছ খাওয়া ভালো।

>> চর্বিজাতীয় খাদ্য সীমিত রাখুন। অল্প পরিমাণে ভোজ্যতেল ব্যবহার করুন। লবণাক্ত খাবার, রান্নায় ও খাওয়ার সময় পাতে লবণের ব্যবহার সীমিত করুন। ছত্রাকযুক্ত খাবার খাবেন না। পচনশীল খাদ্য সংরক্ষণের জন্য ফ্রিজ ব্যবহার করুন। কোনো ধরনের পোড়া খাবার খাবেন না।

>> স্থূলতার সঙ্গেও বেশ কিছু ক্যানসারের সম্পর্ক আছে। কায়িক পরিশ্রম করুন। প্রতিদিন এক ঘণ্টা দ্রুতগতিতে হাঁটুন বা এমন কোনো ব্যায়াম করুন, যাতে শরীর ঘামে।

>> ধূমপান ও মদ্যপান করবেন না। ধূমপান শুধু ফুসফুসের ক্যানসার নয়, অনেক ধরনের ক্যানসারের জন্যও দায়ী।

>> সিগারেটের নিকোটিনে অনেক বেশি কারসিনোজেন থাকে, এটিও ক্যানসারের জন্য দায়ী। গুল, জর্দা বা তামাকপাতা ব্যবহার করবেন না। এ ছাড়া পর্যাপ্ত ঘুম ও বিশ্রাম নিন।

>> শিল্পকারখানার ক্যানসারবাহী উপাদান ও তেজস্ক্রিয়ার ক্ষতিকর সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন।