নোবেলের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে

15

নিজস্ব প্রতিবেদক:’ইথুন বাবুর আইনজীবী ফারুক আহাম্মদ বলেন, ‘আগামী বৃহস্পতিবার ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালে সংগীত শিল্পী নোবেলের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার আবেদন করা হবে।;’

‘ফেসবুকে গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক ইথুন বাবুকে নিয়ে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেওয়ায় সংগীতশিল্পী মাঈনুল আহসান নোবেলের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার এই মামলার বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।
নোবেলের বিরুদ্ধে মামলার আবেদনের ওপর ঐইদিনই শুনানি হবে তারপর মামলার বিষয়ের সিদ্ধান্ত হবে।;

‘কিছুদিন আগে নিজের ফেসবুক পেজ নোবেল ম্যান থেকে দেশের স্বনামধন্য একাধিক শিল্পীকে নিয়ে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেন নোবেল। সে সময় এক স্ট্যাটাসে ইথুন বাবুকে চোর বলে আখ্যায়িত করেন এই গায়ক। লেখেন, ‘ইথুন বাবু একটা চোর। অন্যের গান নিজের নামে চালায় দিসে’। তারই ফলশ্রুতিতে গত ২৩ মে নোবেলের বিরুদ্ধে হাতিরঝিল থানায় জিডি করেন ইথুন বাবু। ফেসবুক স্ট্যাটাসে নোবেল তার মানহানি করেছেন বলে জিডিতে উল্লেখ করেন বাবু। তখনই তিনি বলেছিলেন নোবেলের বিরুদ্ধে মামলা করবেন। যা আগামী বৃহস্পতিবার করতে যাচ্ছেন।;

‘আগামী বৃস্পতিবার মামলার বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে ইথুন বাবু কালের কণ্ঠকে বলেন, নোবেলের এইসব কর্মকাণ্ডকে কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না। তার বিরুদ্ধে মোট তিনটি মামলা হবে। আগামী বৃস্পতিবার প্রথম মামলাটির বিষয়ে শুনানি হবে। নোবেল আসলে শিল্পী না; যে এসব কাণ্ড ঘটাতে পারে, তাকে শিল্পী বলি কীভাবে। ওর বিরুদ্ধে মামলা করেছি আমি। অভিযোগ, ও আমার সম্মানহানি করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে। আসলে, ওকে যারা প্রশ্রয় দিচ্ছে, তারাও এসব দায় এড়াতে পারে না।;’

‘ইথুন বাবু বলেন, ‘ দীর্ঘ সংগীত ক্যারিয়ারে যে কথা কেউ কোনওদিন বলতে পারেনি নোবেল আমাকে সেই কথা বলেছে। আমি নাকি চোর? আমার মেয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়েছে। ছেলে এমবিএ করছে। শ্রোতা ভক্তসহ সারা দেশে সংগীত এবং সংগীতের বাইরে আমার অসংখ্য বন্ধু-শুভাকাঙক্ষী আছে। নোবেলের স্ট্যাটাসের কারণে সবার কাছে আমার সম্মানহানি হয়েছে। তাই আমি এর সুষ্ঠু বিচারের জন্য আইনের আশ্রয় নিয়েছি, থানায় জিডি করার পর এবার আদালতে মামলা করেছি।;’

‘তিনি বলেন, নোবেলের ওই স্ট্যাটাসগুলো আমাদের সংগীতাঙ্গনের জন্য অশনি সংকেত। সিনিয়র শিল্পীদের নিয়ে এভাবে কথা বলার পাশাপাশি সে মিডিয়াকে হুমকি দিচ্ছে, সাংবাদিককে তুলে নিয়ে যাওয়ার ভয় দেখাচ্ছে। তার কত্ত বড় সাহস! দেশের চলমান আইনে তার শাস্তি হওয়া উচিত।’;