বিচার বিভাগের ডিজিটাইজেশনের ক্ষেত্রে ড্যাশবোর্ড প্রশিক্ষণটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে অতিরিক্ত সচিব ড. মো. আব্দুল মান্নান

35

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার বিচার বিভাগকে আধুনিকায়নের লক্ষে জুডিসিয়াল ড্যাশবোর্ড বিষয়ক অনলাইন প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। দেশের অন্যান্য জেলার মতো চুয়াডাঙ্গাতেও এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টায় অনলাইন প্রশিক্ষণ শুরু হয়। চলে একটানা ৩ ঘন্টা। প্রশিক্ষণে ১০ জন বিচারক এবং ৩০ জন কর্মচারী অংশ নেন।

তারা সবাই ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ মো. জিয়া হায়দার। প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন অতিরিক্ত সচিব ও একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রকল্পের পরিচালক ড. মো. আব্দুল মান্নান (পিএএ)। অনলাইন প্রশিক্ষণে আরও যুক্ত ছিলেন বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মিজানুর রহমান, বিজ্ঞ যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ কামাল হোসেন শিকদার এবং মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী, বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ মো. ছানাউল্ল্যাহ, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পাপিয়া নাগ, জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইদুল ইসলাম, সহকারী জজ নাজনীন আক্তার, মো. আরমান হোসেন, নীলা খাতুন এবং মো. ইব্রাহিম খলিল।

প্রশিক্ষণের সেশন পরিচালনা করেন এটুআই জুডিসিয়ারি টিমের সদস্য বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ফারজানা খান, বিজ্ঞ যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ মো. সাব্বির মাহমুদ চৌধুরী, বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ মো. মাহবুব সোবহানী, বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট টিওটি মানিক দাস ও বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফারিহা নোশিন বর্ণী। প্রশিক্ষণে চুয়াডাঙ্গার ১০ জন বিচারক এবং ৩০ জন কর্মচারী প্রশিক্ষণার্থী হিসেবে ড্যাশবোর্ড প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করেন। প্রধান অতিথি অতিরিক্ত সচিব ও একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রকল্পের পরিচালক ড. মো. আব্দুল মান্নান (পিএএ) বলেন, অনলাইন ড্যাশবোর্ডের মাধ্যমে সহজেই নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ আদালত সমূহের কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে সক্ষম হবে। বিচার বিভাগের ডিজিটাইজেশনের ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।