বিরোধপূর্ণ জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগে কেশবপুর প্রেসক্লাবের সংবাদ সম্মেলন

7

কেশবপুর প্রতিনিধি : আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে কেশবপুরের পাঁজিয়ার ইউনিয়নের কমলাপুর গ্রামে বিরোধপূর্ণ জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগে কেশবপুর প্রেসক্লাবের সংসাবদ সম্মেলন করা হয়েছে। বুধবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা কমলাপুর গ্রামের মৃত রজব আলী মোড়লের ছেলে গোলাম ফারুক।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ৯৯ নং ব্রাক্ষনডাঙ্গা (কমলাপুর) মৌজার ১১৭২ ও ১১৭৭ দাগের ৬০ শতক এবং ১১৮১,১১৮৩,১১৮৫ ও ১১৮৭ দাগের মোট ৫৪ শতক উভয় সি এস খতিয়ানের মালিক সামছুন্নেসা বিবি। সামছুন্নেসার দুই ছেলে গোলাম আলী ও গোলাম রহমান। তাদের ওয়ারেশগন সি এস রেকর্ড থেকে ভোগদখল করে আসছে। এর মধ্যে গোলাম রহমানের ছেলে রজব আলীর ৪ ছেলে গোলাম মোস্তফা, গোলাম মোহাম্মদ, গোলাম ফারুক ও গোলাম সরোয়ার এবং অন্য ওয়ারেশগন ভোগদল করে আসছে। একই গ্রামের আব্দুল হামিদ শেখ, টেটে মোড়ল, জিতু মোড়ল এরা কেউ সামছুন্নেসা বিবির ওয়ারেস না হওয়া সত্তেও উল্লেখিত জমি দাবি করে জোর পূর্বক দখলের চেষ্টা করে আসছে। কমলাপুরের ইউপি সদস্য আব্দুল হালিমের নেতৃত্বে ওই জমি জোরপূর্বক দললের চেষ্টা করে। তারই ধারাবাহিকতায় ০৭ জানুয়ারি তারা জিতু মোড়লের ছেলে নওশের আলী মোড়ল উল্লেখিত জমি দখলে নেয়ার জন্য মেম্বও আব্দুল হালিমের সহযোগিতায় ৩০/৪০ জন সন্ত্রাসী নিয়ে উপস্থিত হয়।

এঘটনায় জমির প্রকৃত মালিকরা যশোর আদালতে নিষেধাজ্ঞার আবেদন করে। যার মামলা নাং-৪৮/২১। আদালত ওই জমিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ১২ জানুয়ারি নওশের মোড়লের নেতৃত্বে হালিম মেম্বরের সহযোগিতায় নাজমুল হোসেন, তবিবুর রহমান, আয়ুব হোসেন, সোহাগ হোসেন সহ এদকল ব্যক্তি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ওই জমি থেকে ৫৫/৬০ টি বাশ জোরপূর্বক কেটে নিয়ে যায়। বিভিন্ন সময়ে তারা জমি দখল সহ পরিবারের সদস্যদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করার হুমকি প্রদান করছে। জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে এবিষয়ে তারা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনের সময় উপস্থিত ছিলেন, গোলাম সরোয়ার, আলিমুজ্জামান, ফয়সাল শাহীন রাজু ।