ভোটেই প্রমাণ আমার জনপ্রিয়তা : সালাউদ্দিন

19

স্পোর্টস ডেস্ক : ‘১২ বছরে দেশের ফুটবলকে এগিয়ে নিতে পারেননি। ফুটবলার সালাউদ্দিন সংগঠক হিসেবে চরম ব্যর্থ। হটাও সালাউদ্দিন বাঁচাও ফুটবল।’ এমন অনেক সমালোচনা সইতে হয়েছে তাকে। কিন্তু ১৩৫ কাউন্সিলর চতুর্থবারের মতো কাজী সালাউদ্দিনের ওপর রেখেছেন আস্থা। আগের তিন নির্বাচনের চেয়েও এবার বেশি ভোট পেয়েছেন। গত নির্বাচনে পেয়েছিলেন ৮৩ ভোট। এবার ৯৪। এমন জয় দিয়ে যেন নিন্দুকদের একটা জবাব দিয়ে দিলেন তিনি।

আগামী চার বছর ফুটবলের ভার নিজের কাছে রেখে সগৌরবে বলেই ফেললেন, ‘এই ভোটেই প্রমাণিত হলো আমার জনপ্রিয়তা।’ গতকাল রাতে বহুল আলোচিত নির্বাচনের ফল ঘোষণা শেষে সবাইকে নিয়ে ফুটবল উন্নয়নের কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বাফুফের চতুর্থবারের সভাপতি।

সালাউদ্দিন বলেন, ‘আমাদের বিজয়টা ভোটারদের বিজয়। অনেকে অনেক কথা বলেছে নির্বাচনের আগে। উত্তরটা দেওয়ার ছিল ভোটারদের। তারা উত্তর দিয়েছে। আমরা ফুটবল করছি। ১২ বছরে কোনো লিগ, খেলা মিস হয়নি। এবং এটা করি বলেই খেলোয়াড়রা এবং কাউন্সিলররা যারা ফুটবলের সঙ্গে সরাসরি জড়িত তারাই আমাকে সাপোর্ট করে। এটাই একমাত্র কারণ।

আজকে সব বর্তমান খেলোয়াড় যখন আমাকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছে তখনই আমি বুঝেছি আমি ঠিক কাজ করেছি। মিডিয়াতে অনেক কথা শুনেছি। অনেকে বলেছে আমার ১০ ভোট নাই, ১২ ভোট নাই। যত দিন যাচ্ছে আমার ভোট কিন্তু বাড়ছে। ২০১৬ সালে পেয়েছিলাম ৮৩ ভোট। এবার ৯৪ ভোট পেয়েছি। ফুটবল নিয়ে যারা কাজ করে তাদের কাছে তো আমি জনপ্রিয় আছি।’ নির্বাচনের বিভেদ ভুলে নিজের দেওয়া ইশতেহার বাস্তবায়নের কথা বলেছেন সালাউদ্দিন, ‘যারা নির্বাচিত হয়ে এসেছে, তারা আমার প্যানেল থেকে আসুক বা অন্য প্যানেল থেকে। তাদের তো ভোটাররা এনেছে। অবশ্যই আমি তাদের সঙ্গে নিয়েই কাজ করব।’

চতুর্থবার সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্বাচিত হওয়া সালাম মুর্শেদি বলেন, ‘আমাদের এই ফুটবল নির্বাচনকে নিয়ে অনেক লেখালেখি হয়েছে। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি নির্বাচন। ভোটাররা যে আমাদের ওপর আস্থা রেখেছেন সেটাই প্রমাণিত হলো এই নির্বাচনে। এ বিজয় আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে উৎসর্গ করলাম।’