মুনিয়া ইস্যু নিয়ে যুদ্ধাপরাধী-বিএনপির রাজনীতি

14

নিজস্ব প্রতিবেদক: গুলশানে একজন কলেজছাত্রীর মৃত্যুকে ঘিরে রাজনীতি শুরু হয়েছে। গত এপ্রিলে মারা যান মুনিয়া। গুলশানের একটি ফ্ল্যাটে তার মৃত্যুর পর প্রথমে দায়ের করা হয় এটি আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলা। আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলায় কোনো প্ররোচনার অভিযোগ না পাওয়ার পর পুলিশ প্রায় তিন মাস তদন্ত শেষে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে ওই মামলার বাদী মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত তানিয়া নারাজি দরখাস্ত দেন। কিন্তু আদালত ওই নারাজি দরখাস্ত নাকচ করে দেয়। এর কয়দিন পরেই নুসরাত তানিয়া নতুন করে একটি হত্যা ও ধর্ষণের অভিযোগে ৮ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেন। সেই মামলার তদন্ত এখন করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। আগামী নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পিবিআই মামলার তদন্ত রিপোর্ট জমা দেবে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

এই মামলাটিকে আপাত একটি ন্যায় বিচারের প্রার্থনার কথা বলা হলেও এর ভেতরে রয়েছে একটি গভীর রাজনীতি এবং ষড়যন্ত্র। সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যে ফেলার জন্য এবং দেশে আইনের শাসন নেই, ন্যায় বিচার হয় না ইত্যাদি অনেকগুলো ইস্যুকে প্রমাণের জন্য হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে মুনিয়ার মৃত্যুর ইস্যুকে।

প্রথমত, প্রথম থেকেই যুদ্ধাপরাধী এবং বিএনপি জামাত গোষ্ঠী প্রকাশ্য এবং নীরবে কাজ করছে। মুনিয়ার মৃত্যুর পরপরই প্রথমে যুদ্ধাপরাধী গোষ্ঠী যারা বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সরকার, প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিদেশে বসে সাইবার সন্ত্রাস করছে তারা ইস্যুটিকে লুফে নেয়। তারা একের পর এক অপপ্রচার, মিথ্যাচার, চরিত্রহনন এবং কুৎসিত, নোংরা আক্রমণ শুরু করে এই ইস্যুকে নিয়ে।

দ্বিতীয়ত, এর মূল উদ্দেশ্য হলো সরকারকে সমালোচনায় বিদ্ধ করা। দেশে আইনের শাসন, ন্যায়বিচার নেই এটি প্রমাণ করা। একটু লক্ষ্য করলে দেখা যাবে যে, মুনিয়া ইস্যু নিয়ে যে সাইবার সন্ত্রাস চলছে সেই সন্ত্রাসের মূল টার্গেট আসলে সরকার। সরকার ন্যায় বিচার করছে না, এটি প্রমাণের জন্য মুনিয়া ইস্যুকে বেছে নিয়েছে যুদ্ধাপরাধী সাইবার সন্ত্রাসীরা।

তৃতীয়ত, এসবের পেছনে আবার বিএনপি এবং জামাতপন্থীদের একটি মদদ রয়েছে বাংলাদেশে। একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যায় যে মুনিয়ার মৃত্যুর পর তার বোনকে আইনি সহায়তা দেওয়ার জন্য যারা তৎপর হয়েছেন তাদের সকলেরই রাজনৈতিক পরিচয় রয়েছে। এরা বিএনপি-জামাত ঘরানার আইনজীবী হিসেবে পরিচিত। বিশেষ করে ৮ নং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মুনিয়া ইস্যুতে যে মামলাটি হয়েছে সেখানে যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষাবলম্বন করা আইনজীবীসহ বেশ কয়েকজন রয়েছেন যারা যুদ্ধাপরাধী এবং বিএনপির মদদপুষ্ট। অর্থাৎ আইনি এমন একটি বাতাবরণ তৈরি করার চেষ্টা করা হচ্ছে যাতে সরকার বিচার করে না বিষয়টি নিশ্চিত করা।

চতুর্থত, এই মামলার মধ্য দিয়ে সুশীল সমাজের একটি মেরুকরণের ঘটনা ঘটানো হচ্ছে সরকারকে চাপে ফেলার কৌশল হিসেবে। এই মামলার মাধ্যমে দেখানোর চেষ্টা করা হচ্ছে যে, বাংলাদেশে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা আইনের ঊর্ধ্বে। অথচ মুনিয়ার মৃত্যুর পর পুলিশ নির্মোহভাবে তদন্ত করেছে এবং তিন মাস তদন্ত শেষে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। এই তদন্তকালে তারা একদিকে যেমন মুনিয়ার বাসায় কারা গিয়েছিল, সেই সিসিটিভি ফুটেজ নিয়েছে। মুনিয়ার ডায়েরি এবং অন্যান্য তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করেছে। সবকিছু করার পরই এই মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। এখন এটি নিয়ে জলঘোলা করার চেষ্টা করা হচ্ছে দেশের পুলিশ বাহিনীকে বিতর্কিত এবং বিব্রত করার লক্ষ্যে। অর্থাৎ বাংলাদেশের পুলিশ বাহিনীর সম্বন্ধে বিএনপি-জামায়াত গত চার-পাঁচ বছর ধরে যে সমালোচনাগুলো করছে, সেই সমালোচনাকেই মুনিয়ার মৃত্যুর মাধ্যমে সরল সমীকরণে ফেলার চেষ্টা করছে।

সবচেয়ে বড় কথা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের যে অগ্রগতি, উন্নয়ন হচ্ছে সেখানে বেসরকারি খাত যে বড় ধরণের ভূমিকা রাখছে সেটিকে বাধাগ্রস্থ করাও এই মামলার উদ্দেশ্য। এইরকম মামলার ফলে বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান, শিল্প গ্রুপগুলো সংকুচিত হবে, কুণ্ঠিত হবে এবং তাদের যে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এবং শিল্পের প্রসারে যে ভূমিকা তা সংকুচিত হবে। অর্থাৎ মুনিয়ার মৃত্যু নিয়ে যুদ্ধাপরাধী এবং বিএনপির অপরাজনীতির একটি সুস্পষ্ট তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এর মূল উদ্দেশ্য হলো ন্যায় বিচার নয় বরং সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে সামনে যে আন্দোলন হবে সেই আন্দোলনের জন্য একটি ইস্যু তৈরি করা।