হাসপাতাল থেকে নবজাতক চুরি

20

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে এক দম্পতির নবজাতক শিশু চুরির ঘটনা ঘটেছে। হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ড থেকে শিশুটি চুরি হয়েছে বলে অভিযোগ তাদের। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা সুধারাম মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও এখনো পর্যন্ত শিশুটির কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

শনিবার দুপুরে হাসপাতাল থেকে চুরি হওয়া নবজাতকের পিতা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ মুছাপুর গ্রামের বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম বলেন, গত চারদিন আগে তার স্ত্রীর প্রসব বেদনা শুরু হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তার স্ত্রী লুৎফুন নাহার (২০) নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেয়। শিশুটি জন্ম নেওয়ার কিছুক্ষণ পর ওই দম্পতি তাদের সন্তানকে দেখতে চাইলে নার্স ও আয়া বিভিন্ন তাল বাহানা শুরু করেন।

তিনি বলেন, এক ঘণ্টা পর সাইফুল ইসলামকে জানানো হয় তার নবজাতকটি মৃত হয়েছে। পরে তিনি মৃত শিশুর দেহ দেখতে চাইলে তারা তাও দেখাতে পারেননি। নার্স ও আয়া তার ছেলেকে চুরি করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে অন্যত্র বিক্রি করে দেয়। তিনি তার সন্তানকে পাওয়ার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিক বার ধরনা দিয়েও কোনো পাত্তা পাননি বলে অভিযোগ করেন।

হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডের ইনচার্জ বিথিকা রানী হালদার বলেন, ওই প্রসূতির একটি মৃত পচা, গলা শিশু ভূমিষ্ঠ হয়েছে। শিশুটির দেহ কোথায় আছে তা জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

এ বিষয়ে জানতে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ আব্দুল আজিমের মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

হাসপাতালের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ডা. ফরিদ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, এ ধরনের একটি কথা তিনি শুনেছেন। অফিসের কাজে তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। নোয়াখালী ফিরে তিনি বিষয়টি খোঁজ খবর নিবেন।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নবীর হোসেন বলেন, ঘটনায় নবজাতকের বাবা শনিবার সকালে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।