দৈনিক জনবাণী | বাংলা নিউজ পেপার | Daily Janobani | Bangla News Paper
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

প্রকৃতিতে শীতের আমেজ কদর বাড়ছে গরম পোশাকের



প্রকাশ: ১৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০১ অপরাহ্ন

শেখ আবদুল্লাহ, আনোয়ারা: কড়া নাড়ছে শীত। সারা দিন রোদের রাজত্ব শেষে সন্ধ্যা নামতেই বদলে যাচ্ছে তাপমাত্রা। ভোরের দিকে চাদর বিছিয়ে দিচ্ছেকুয়াশা। তবে এখনো জেঁকে বসেছে শীত। শীতকে মোকাবিলা করতে আনোয়ারা উপজেলার ফুটপাত ও  শপিংমলগুলোতেগরম কাপড়ের  নিয়ে বসেছেন দোকানিরা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বিশেষ করে উপজেলার চাতরী চৌমুহনী বাজার,বন্দর সেন্টার,আনোয়ারাসদর,বটতলী,শপিংমলগুলোতে শীতবস্ত্রের মেলা বসেছে। এসব শপিংমলগুলোতে শীতের পোশাক কিনতে জড়ো হচ্ছেনক্রেতারা। তবে বেচা-কেনা এখনো জমে ওঠেছে।

প্রতিনিয়তই তরুণ-তরুণীদের ফ্যাশন পরিবর্তন হচ্ছে। তাই তাদের যদি নতুন কোনো রূপে দেখা যায়, তাহলে অবাক হওয়ারকিছুই নেই। ফ্যাশন হাউসগুলো সব সময়ই দেশি উপকরণ নিয়ে কাজ করে। সালোয়ার-কামিজ পরা মেয়েদের জন্য আছে লংজ্যাকেট, পঞ্চ। ফুলহাতা উজ্জ্বল রঙের লম্বা পাঞ্জাবিও আছে; যা চুড়িদার পায়জামার সঙ্গে পরে তার ওপর একটা শাল জড়িয়েনিলে ফ্যাশনও হবে, পাবে আরামও। এখন তরুণীরা পছন্দ করছেন মোটা কাপড়ের টপস, লেগিংস আর বাহারি ডিজাইনেরকার্ডিগেন। শাড়ির ক্ষেত্রে ফুলস্লিভ ব্লাউজ আর শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে শাল জড়িয়ে হয়ে উঠতে পারেন অনন্য। টি-শার্ট বা শার্টপরলে ওপরে পরতে পারেন হাতাকাটা সোয়েটার। অথবা একটু ঢিলেঢালা পুলওভার।

ছেলেদের জন্য শীত উপলক্ষে জ্যাকেটের পাশাপাশি ফুলহাতা টি-শার্ট, ফুলহাতা শার্ট, খদ্দর কাপড়ের আরামদায়ক ট্রাউজারওআছে। শীতে আঁটসাঁটো নয়, বরং ঢিলেঢালা পোশাকই পরতে আগ্রহী কিশোরী আর তরুণীরা। পশমী বা উলের ক্রুসকাটারকাজ করা সোয়েটার পরছেন অনেকেই। সোজা কাটের পোশাকের সঙ্গে বেছে নিতে পারেন হাঁটু পর্যন্ত লম্বা ব্লেজার। জ্যাকেট আরব্লেজারের সংমিশ্রণে তৈরি নতুন ধরনের শীতের পোশাক উঠে আসছে তরুণদের পছন্দের তালিকায়। অফিসের প্রয়োজনে ব্লেজারপরতে পারেন।

ডিজাইনের ওপর পোশাকের দামেরও ভিন্নতা আছে। বিভিন্ন ধরনের চামড়ার নকশা করা জ্যাকেট কেনা যাবে ৮০০ থেকে  ২হাজার টাকায়। ক্যাজুয়াল ব্লেজারের দাম পড়বে  ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা। হুডি জ্যাকেট বা সোয়েটার দোকানভেদে দাম পড়বে৫০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা। আর উলের সোয়েটার ৪০০ থেকে ১ হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।  শালগুলোর দাম পড়বে৩০০ থেকে ৫০০ টাকা।  

বন্দর সেন্টার  ফুটপাতে কাপড়ের পসরা নিয়ে বসেছিলে ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতা আমিন শরিফ তিনি বলেন, ‘এই এলাকায় অনেকেশপিং করতে আসেন। তারা আমাদের কাছ থেকেও কাপড় কিনে নিয়ে যান। ছোট-বড়, সব বয়সী মেয়েদের সোয়েটার, মোটাকাপড়ের সর্টস, লং কুর্তি আছে। দাম ২০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে। গত দুই-তিন দিনে বিক্রি একটু বেড়েছে।’

চাতরী চৌমুহনী ওয়ান মাবিয়া সিটি সেন্টার  কথা হয় শিক্ষার্থী মনির হোসেন সঙ্গে। তিনি বলেন পুরোপুরি শীত এলে শীতেরপোশাকের দাম বেড়ে যাবে। তাই এখনই কিনে নিচ্ছি।’

ফ্যাশন সচেতনদের এই শীত কিন্তু ভীষণ প্রিয়। কেননা শীত নিবারণের হাজারো পোশাকে বাজার সরগরম। শীতের ফ্যাশনকেমন হতে পারে, তা ডিজাইনারদের মতে অনেকটা এমন যে, শীতের পোশাকের জম্পেশ কালেকশন নিয়ে এসেছে দেশীয় ফ্যাশনহাউসগুলোও। জ্যাকেট, ব্লেজার, সোয়েটার, হুডিতে যেমন রয়েছে ফ্যাশন বৈচিত্র্য তেমনি রয়েছে

উপজেলা  মার্কেটের ব্যবসায়ী সাজ্জাদ সুমন  বলেন, গত দুই-তিন দিন ধরে কম্বল, জ্যাকেট, সোয়েটার ও শাল কিনতে ক্রেতারাআসছেন। বেচা-কেনাও ভালো হচ্ছে। এদিকে, আসছে শীতের আগমনের জন্য মহল্লার বিভিন্ন লেপ-তোষকের দোকানে বাড়ছেব্যস্ততা।

আরও পড়ুন