দৈনিক জনবাণী | বাংলা নিউজ পেপার | Daily Janobani | Bangla News Paper
মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২

পরিবহনে ডাকাতের নির্যাতন, মামলা করতে দিশাহারা ভুক্তভোগীরা



প্রকাশ: ১৬ জানুয়ারী ২০২২, ০১:০৪ অপরাহ্ন

সাভার প্রতিনিধি: যাত্রীবাহী বাসে ডাকাতির ঘটনায় সাভার ও মির্জাপুর থানায় ঘুরেও  মামলা নেয় নি পুলিশ। রাতভর ডাকাতের নির্যাতন, দিনভর মামলার জন্য ঘোরাঘুরি করে হয়রানির শিকার হয়েছেন বলে দাবি ভুক্তভোগীদের।

রবিবার (১৫ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১১ টার দিকে এমন অভিযোগ এনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ডাকাতের কবলে পড়া সোনার তরী পরিবহন বাসের চালক পাভেল মিয়া। এর আগে গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সাভারের গেন্ডা এলাকায় ডাকাতের কবলে পড়ে সোনারতরী নামের যাত্রীবাহী চলন্ত বাসটি। শনিবার ভোর সাড়ে ৪ টার দিকে ডাকাতি শেষ করে চলে যায় ডাকাতরা।

বাস চালক পাভেল বলেন, 'আমি বগুড়া ঠনঠনিয়া বাসটার্মিনাল থেকে বিকেল সাড়ে পাঁচটায় গাড়ি ছেড়ে দেই। রাস্তায় যানজট থাকায় ৩৫ জন যাত্রী নিয়ে গাড়ি চালাতে থাকি। আমাদের সিট খালি থাকলে রাস্তায় আমরা যাত্রী উঠাই। এলেঙ্গায় এসে আমরা ৭ জন যাত্রী বাসে উঠাই। যাদের সবাই যাত্রীবেশে ডাকাত ছিল। এর পর চন্দ্রা বাস স্ট্যান্ড, রেডিও কলোনীতে যাত্রী নামাই। এর আগে নবীনগর থেকে ঢাকার একজন যাত্রী বাসে ওঠেন। সর্বশেষ সাভারের গেন্ডা বাস স্ট্যান্ডে দুই জন যাত্রী নামিয়ে গেট লক করার সাথে সাথেই ডাকাতরা আমাদের অ্যাটাক করে। এসময় ডাকাতসহ গাড়িতে ২০ থেকে ২২ জন যাত্রী ছিল। গাড়ির স্টিয়ারিং থেকে  নামিয়ে ডাকাতের মধ্যে একজন বসে। আর আমাকে মারধর করে হাত ও চোখ বেধে গাড়ির পিছনে নিয়ে রাখে। এসময় গাড়িটি ঘুড়িয়ে টাঙ্গাইলের দিকে রওনা হয়। ভোরে সাড়ে ৪ টার দিকে আমার জ্ঞান ফিরলে দেখি নবীনগর থেকে যে যাত্রীটি গাড়িতে উঠেছিল সেই যাত্রী আমাদের হাত ও চোখ খুলে দিচ্ছে।  সব যাত্রীদের হাত ও চোখ বাঁধা ছিল। গাড়ি থেকে নেমে দেখি আমরা টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর থানার গোড়াই এলাকায়। এই এলাকা থেকে সাভার হাইওয়ে থানা পুলিশ আমাদের গাড়িসহ সাভারে নিয়ে আসেন। পরে সাভার থানায় গেলে তারা মামলা না নিয়ে মির্জাপুর থানায় যেতে বলেন। মির্জাপুর থানায় যোগাযোগ করলে তারা বলে সাভার থানায় মামলা হবে। সারাদিন হয়রানির শিকার হয়েছি। কোন থানায় মামলা নিচ্ছে না।'

গাড়ির সুপারভাইজার শহিদুল বলেন,  আমার গলায় মাফলার ছিল তা দিয়ে আমার হাত বেঁধে ফেলে। তাদের কাছে চাকু, রামদা ও পিস্তল ছিল। সব যাত্রীর হাত বেধে প্রায় ৫০ হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন লুট করে ডাকাতরা। সারারাত আমাদের হাত ও চোখ বাঁধা ছিল। আর দিনে আমরা সাভার থানায় গেলে আমাদের মামলা না নিয়ে মির্জাপুর থানায় যেতে বলেন। 

মির্জাপুর থানা বলেন, মামলা সাভার থানায় হবে। এক থানা আরেক থানায় যেতে বলছেন।' সাভার থানায় বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত ছিলাম তবুও মামলা নিলো না।

এব্যাপারে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গিয়াসউদ্দিন জনবাণীকে  বলেন, 'এরকম একটি খবর আমরা সকালে পেয়েছিলাম। তবে আমাদের এখানে কেউ আসে নাই। যেহেতু সাভার থানায় ডাকাতি শুরু হয়েছে সেহেতু মামলা সাভার থানায় হবে। মোবাইলে আমি চালকের সঙ্গে কথা বলেছি।  সাভারে ঘটনা শুরু হয়েছে তাহলে মির্জাপুরে মামলা হবে কেন? 

এব্যাপারে সাভার মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোমেনুল ইসলাম জনবাণীকে বলেন, এই মামলা সাভারে হবে না। এটা মির্জাপুরের ঘটনা তাই মির্জাপুর থানায় মামলা নেবে।

এসএ/

আরও পড়ুন