দৈনিক জনবাণী | বাংলা নিউজ পেপার | Daily Janobani | Bangla News Paper
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২

সমঝোতা'য় শেষ সরিষাবাড়ীর ধর্ষণ মামলা


উপজেলা প্রতিনিধি
প্রকাশ: ২০ জুন ২০২২, ০৫:০৭ অপরাহ্ন

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে আরএনসি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষনের চেষ্টা ঘটনায় মিমাংসা করা হয়েছে। থানায় অভিযোগ দিয়ে ধর্ষনের চেষ্টা ঘটনায় অর্থের মাধ্যমে সমঝোতা হওয়ায় স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।  

জানা যায়, শনিবার ১১ জুন দিনগত রাত ১২ঃ৩০ মিনিটে উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের চুনিয়াপটল গ্রামে ঘরের দরজা খোলা পেয়ে আছমত আলীর মেয়েকে মুখ চেপে ধরে বাড়ীর আঙ্গিনায় নিয়ে এসে বেড়া ভেঙ্গে সীমানার পার্শে রেখে মুখ চেপে ধরে ধর্ষনের চেষ্টা করে রবিউল এর ছেলে রিপন। মেয়ের সতীত্ব বাচাতে গিয়ে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন শিক্ষার্থীর মা শান্তি বেগম।ঘটনার সময় রিপন  তার গেঞ্জি ও পায়ের পন্স রেখেই পালিয়ে যায়। শনিবার একটি মহল ধর্ষনের চেষ্টাকারী রিপনকে বাঁচাতে মিমাংসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। বিষয়টি সমঝোতা করার জন্য স্থানীয় কিছু অসাধু মাতাব্বররা দিন ব্যাপী দরবার করে  ব্যর্থ হয়।
 
সাংবাদিকরা  ঘটনাস্থলে গেলে তথ্য নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করার পর মেয়ের বাবা বাদী হয়ে সরিষাবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। গত ১৭ জুন শুক্রবার স্থানীয় ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার চান মিয়া সহ কয়েকজন মাতাব্বরের উপস্থিতিতে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার মাধ্যমে মিমাংসা করেন। ধর্ষন কিংবা ধর্ষনের চেষ্টার জগন্যতম ঘটনায় মিমাংসার বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয় এলাকাবাসীদের মধ্যে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ব্যক্তি বলেন, এ রকম জগন্যতম ঘটনায় মিমাংসা। এতে কোন আইনের বিচার হলো না। গ্রামের মাতাব্বর মেয়ের পরিবারকে বিভিন্নভাবে সমঝোতা করার জন্য বারবার চাপ প্রয়োগ করছেন । এই ঘটনায় আইনের বিচার হওয়া প্রয়োজন ছিলো।আইনের বিচারটা হলে অত্যন্ত পক্ষে এলাকায় এ রকম ঘটনা ভবিষ্যতে আর ঘটত না। 
শিক্ষার্থীর চাচা হাফিজুর জানান, আমরা আপোষ হয়ে গিয়েছি। থানা থেকে অভিযোগ মামলা তুলে নিয়ে এসেছি তো।  শালিশী কারা করেছে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, চান মিয়া মেম্বার ছিলো আর ফাকের লোক এসে শালিশী করেছে।আমাদের তো এলাকায় বসবাস করতে হবে। তাই আপোষ হয়েছি। 

বিষয়টি সত্যতা স্বীকার করে চান মিয়া মেম্বার বলেন,  মিমাংসা করে দেওয়া হয়েছে।এতো টাকা না।আর সামনাসামনি কথা বলবনি এসে। 

কথা সরিষাবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল মজিদ বলেন,আমি বিষয়ে আমি কিছু জানিনা।  
এ বিষয়ে সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মীর রকিবুল হকের বক্তব্য নেওয়ার জন্য মুঠোফোনে কল দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

জি আই/

আরও পড়ুন