দৈনিক জনবাণী | বাংলা নিউজ পেপার | Daily Janobani | Bangla News Paper
বৃহঃস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২

স্বামীকে চলন্ত বাস থেকে ফেলে স্ত্রীকে গণধর্ষণ, বাসসহ আটক ৫


উপজেলা প্রতিনিধি
প্রকাশ: ৭ আগস্ট ২০২২, ০৫:২১ অপরাহ্ন

গাজীপুরের শ্রীপুরে ছিনতাইয়ের পর স্বামীকে চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে নারীকে গণধর্ষণের অভিযোগে বাসসহ পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

রবিবার (৭ আগস্ট) ধর্ষণের শিকার ঐ নারীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে এবং তাকওয়া পরিবহনের বাসটি জব্দ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আটক ৫ ধর্ষণকারীর নাম ও পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন- নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াই হাজার থানার দরিপাড়া গ্রামের আলী আকবরের ছেলে রাকিব মোল্লা(২৩), নেত্রকোনা জেলার সদরের গুপিরঝুপা গ্রামের মৃত সানোয়ারের ছেলে সুমন খান (২০), ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কাঠাল কাচারী গ্রামের মৃত কফিল উদ্দিনের ছেলে সজিব (২৩), ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার বিলডোলা গ্রামের তুলা মিয়ার ছেলে শাহিন মিয়া (১৯) এবং খুলনা জেলার রুপশা থানার খানমোহাম্মদপুর গ্রামের মৃত নূর আলমের ছেলে সুমন হাসান (২২)।  

আটককৃতরা রবিবার গাজীপুর আদালতে ঘটনার সাথে তাদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

পুলিশ ও নির্যাতিতার অভিযোগ থেকে জানা গেছে, নওগাঁ থেকে শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে নয়টার সময় একতা পরিবহনের একটি বাসে রওনা দিয়ে রাত ৩ টার সময় গাজীপুর মহানগরের ভোগড়া বাইপাসে স্বামীর সঙ্গে নামেন ওই শ্রমিক দম্পতি। সেখান থেকে ময়মনসিংহের ভালুকা স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকায় ভাড়া বাড়িতে যাবার উদ্দেশ্যে অপেক্ষা করছিলেন তারা। এ সময় তাকওয়া পরিবহনের একটি বাস এসে তাদের সামনে দাঁড়ায়। চালকের সহকারী সজিব বাস থেকে নেমে এসে তাদেরকে বাসে উঠার জন্য টানাটানি করে বলে এতো রাতে ময়মনসিংহের বাস পাবেন না। এটাতে উঠুন আপনাদের গন্তব্যে নামিয়ে দিব। তাছাড়া বড় বাস আসতে সকাল হয়ে যাবে। এতক্ষণ দাড়িয়ে থাকলে সমস্যায় পড়তে পারেন। আপা উঠে পড়েন চলে যাই। এসব বলে অনেকটাই জোর করে বাসে উঠিয়েছিল শ্রমিক দম্পতিকে। রাত ৩ টা ১০ মিনিটে তাকওয়া পরিবহনের ওই বাসে ওঠে শ্রমিক দম্পত্তি। এ সময় বাসটিতে ৬/৭ জন যাত্রী দেখতে পান তারা। রওনা দেওয়ার কিছু সময় পর বাসটি ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের হোতাপাড়ায় পৌঁছালে দুজন যাত্রী নেমে যান। রাত ৩ টা ৪০ মিনিটে বাসটি মহাসড়কের শ্রীপুরের মাওনা চৌরাস্তা ফ্লাইওভার পার হয়ে কিছু দূর সামনে গেলে চলন্ত বাসে থাকা অজ্ঞাতনামা ২/৩ জন লোক হঠাৎ ওই নারীর স্বামীকে মারধর শুরু এবং মোবাইল ফোন, নগদ ১০ হাজার ৫'শ টাকাসহ সঙ্গে থাকা অন্যান্য মালামাল ছিনিয়ে নেয়। স্বামীকে মারধর করার সময় নারী শ্রমিক এগিয়ে গেলে অজ্ঞাত লোকজন ওই নারীর মুখ চেপে ধরে রাখে। মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে মারধর করার পর ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের এমসি বাজার এলাকায় চলন্ত বাস থেকে স্বামীকে ফেলে দেয় আক্রমণকারীরা। ওই নারীকে নিয়ে বাসটি ইউ ট্রার্ন করে ঢাকার দিকে চলে আসে। স্বামী বাস থেকে পড়ে আঘাত প্রাপ্ত হয়ে স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকার বোনের বাসায় চলে যান। শনিবার সকালে অপরিচিত একটি মোবাইল থেকে ফোন করে ওই নারী গাজীপুর চৌরাস্তায় আছেন বলে স্বামীকে জানান। পরে স্বামী গাজীপুর চৌরাস্তা হতে স্ত্রীকে উদ্ধার করেন এবং বিস্তারিত ঘটনা জানতে পারেন। ওই দম্পত্তি প্রথমে জয়দেবপুর থানা পরে পুলিশের পরামর্শক্রমে শ্রীপুর থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। 

স্ত্রীর কাছ থেকে ঘটনা শুনে তার স্বামী জানান, ‍“আমাকে গাড়ি থেকে ফেলে দেওয়ার পর আমার স্ত্রীর চোখ ও মুখ বেঁধে তার উপর নির্মম নির্যাতন চালায় ধর্ষকরা। একে একে বাস চালক, সহযোগী ও অপর তিন জন জোর পূর্বক আমার স্ত্রীকে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে হায়েনার দল আমার স্ত্রীর জামাকাপড় খুলে নিয়ে গচ্ছিত রাখে। এ অবস্থায় বাস থেকে নামিয়ে দিতে চেয়েছিল তাকে। পরে অনেক আকুতি-মিনতির পর গায়ের জামা ফিরে পায় সে। এরপর গাজীপুর সদরের রাজেন্দ্রপুর এলাকার ফুট ওভার ব্রিজের কাছে নামিয়ে ধর্ষণকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়।” 

গাজীপুর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোহাম্মদ সানোয়ার হোসেন জনবাণীকে জানান, “এ বিষয়ে গত শনিবার (৬ আগস্ট) ভিকটিম নারীর স্বামীর অভিযোগের ভিত্তিতে শ্রীপুর থানায় মামলা করার পর অভিযানে নামে শ্রীপুর থানা ও গাজীপুর জেলা পুলিশের একাধিক দল। জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত পাঁচ জনকে গ্রেফতার ও বাসটি জব্দ করতে সক্ষম হয় পুলিশ।”

তিনি আরো বলেন, “এ ঘটনায় লুণ্ঠিত মালামালের মধ্যে নগদ চার হাজার টাকা, ওই নারীর ব্যবহৃত মোবাইল সেট, ভেনিটি ব্যাগ, দুইটি ট্রাভেল ব্যাগসহ অন্যান্য সাংসারিক মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে।” 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক আমজাদ হোসেন জনবাণীকে জানান,  “ভুক্তভোগী নারীকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে স্বাস্থ্য পরিক্ষা করা হয়েছে।”

মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের ডা. এএনএম আল-মামুন ও ডা. সানজিদা হক নারীর স্বাস্থ্য পরিক্ষার তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জনবাণীকে বলেন, “সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় শ্রীপুর থানায় নারীর স্বামী বাদী হয়ে মামলা করেছেন। সব আসামি গ্রেফতার হয়েছে। লুট করা প্রায় সব মালামাল উদ্ধার হয়েছে।”

এসএ/

আরও পড়ুন